ইউকে সোমবার, ২ আগস্ট ২০২১
হেডলাইন

১০ মাস ধরে করোনা পজিটিভ, নমুনা পরীক্ষা ৪৩ বার!

১০ মাস ধরে করোনা পজিটিভ, নমুনা পরীক্ষা ৪৩ বার!

১০ মাস ধরে করোনা পজিটিভ, নমুনা পরীক্ষা ৪৩ বার!

ইউকে বাংলা অনলাইন ডেস্ক : ইংল্যান্ডের পশ্চিমাঞ্চলীয় ব্রিস্টল শহরের অবসরপ্রাপ্ত ড্রাইভিং প্রশিক্ষক ডেইভ স্মিথ টানা ১০ মাস ধরে পরীক্ষায় করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন। টানা সংক্রমিত থাকার এই রেকর্ডকে সবচেয়ে দীর্ঘকালীন বলে ধারণা করছেন গবেষকরা। ১০ মাস পরে তিনি নেগেটিভ হন।

৭২ বছর বয়সী এক ব্রিটিশ নাগরিক ডেইভ স্মিথ বলেছেন, তিনি ৪৩ বারের মতো করোনা পজিটিভ হয়েছেন। এর মধ্যে সাতবারই তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে এবং নিজের শেষকৃত্যের পরিকল্পনাও তিনি করেছিলেন।

বিবিসি টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্মিথ বলেছেন, আমি নিজে সবকিছু ছেড়ে দিয়েছিলাম, পরিবারের সদস্যদের ডেকে সবার মাঝে শান্তি স্থাপন করেছি এবং বিদায়ও জানিয়েছিলাম।

বাড়িতে স্মিথের সঙ্গে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন স্ত্রী লিন্ডা। তিনি বলেন, অসংখ্যবার এমন হয়েছে যখন আমরা চিন্তাও করতে পারি নাই যে, ডেইভ চলে যাবে। নরকের মতো একটি বছর গেছে আমাদের।

ইউনিভার্সিটি অব ব্রিস্টল এবং নর্থ ব্রিস্টল এনএইচএস ট্রাস্টের সংক্রামক ব্যাধি বিষয়ক পরামর্শক এড মোরান বলেন, ডেইভ স্মিথের দেহে ভাইরাস পুরো সময়জুড়ে সক্রিয় ছিল।

তিনি বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগীদের কাছে স্মিথের ভাইরাসের নমুনা পাঠিয়ে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি যে, এটা ভাইরাসের অবশিষ্ট অংশ নয়; যা পিসিআর পরীক্ষায় শনাক্ত হয়— আসলে এটি সক্রিয় ভাইরাস ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের বায়োটেক প্রতিষ্ঠান রিজেনারনের সিনথেটিক অ্যান্টিবডির একটি মিশ্রিত চিকিৎসা নেওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন স্মিথ। সহানুভূতি বিবেচনায় স্মিথকে এই চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল। ব্রিটেনে এই চিকিৎসার অনুমোদন নেই।

চলতি মাসে প্রকাশিত এই চিকিৎসার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ফলে দেখা গেছে, করোনা আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে যারা গুরুতর অসুস্থ এবং শরীরে শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেই, সিনথেটিক অ্যান্টিবডির মিশ্রিত চিকিৎসা তাদের মৃত্যু কমাতে সক্ষম।

বিবিসিকে স্মিথ বলেছেন, এটি এমন যে, আপনাকে নতুন জীবন ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রথম শনাক্ত হওয়ার ৩০৫ দিন এবং রিজেনারনের চিকিৎসা নেওয়ার ৪৫ দিনের মাথায় অবশেষে নেগেটিভ হয়েছেন স্মিথ। ওইদিন স্ত্রীকে পাশে নিয়ে শ্যাম্পেইনের বোতল খুলে করোনা জয় উদযাপন করেন তিনি।

স্মিথকে করোনার যে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে; সেটি আনুষ্ঠানিক মেডিক্যাল ট্রায়ালের অন্তর্ভুক্ত ছিল না। তবে ইউনিভার্সিটি অব ব্রিস্টলের ভাইরোলজিস্ট অ্যান্ড্রু ডেভিডসন রিজেনারনের ওই চিকিৎসা নিয়ে গবেষণা শুরু করেছেন।

ইউরোপিয়ান কংগ্রেস অব ক্লিনিক্যাল মাইক্রোবায়োলজি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজের কাছে আগামী জুলাই মাসে স্মিথের চিকিৎসার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করবেন অ্যান্ড্রু ডেভিডসন। তিনি বলেছেন, স্মিথকে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় করোনা আক্রান্ত হিসেবে রেকর্ড করা হতে পারে।

তিনি বলেন, ভাইরাস শরীরের কোথায় লুকিয়ে থাকে? এটি কীভাবে অবিরাম মানুষকে সংক্রমিত করতে পারে? আমরা এসব জানি না।

স্মিথের ফুসফুসের রোগের ইতিহাস ছিল এবং তিনি গত বছরের মার্চে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার পর লিউকেমিয়া থেকেও সেরে উঠেছিলেন।

দ্য গার্ডিয়ানকে স্মিথ বলেছেন, সুস্থ হয়ে ওঠার পর এখনও তার শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা হয়। তারপরও তিনি ব্রিটেন ভ্রমণ করেছেন এবং নাতনিকে গাড়ি চালানো শিখিয়েছেন। আমি একদম চূড়া থেকে তলানি পর্যন্ত গিয়েছি এবং এখন সবকিছুই চমৎকার।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

সর্বশেষ সংবাদ

ukbanglaonline.com