ইউকে শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪
হেডলাইন

বেনজীরের সাভানা রিসোর্টের দায়িত্ব নিলেন রিসিভাররা

ইউকে বাংলা অনলাইন ডেস্ক :সম্প্রতি আদালতের নির্দেশে ক্রোক করা সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজির আহমেদের গোপালগঞ্জের সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অভিযুক্ত বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যদের নামে গোপালগঞ্জে করা সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্কের দায়িত্ব আদালতের নির্দেশে বুঝে নিয়েছেন রিসিভাররা (প্রশাসনিক কর্মকর্তারা)।

আদালতের নির্দেশে দায়িত্ব নেয়ার পর সোমবার (১০ জুন) বেলা ১১টায় রিসিভাররা পার্কটি পরিদর্শন করেছেন বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) গোপালগঞ্জ কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. মশিউর রহমান।

সোমবার গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলমের নেতৃত্বে দুদক এবং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের একটি প্রতিনিধিদল পার্ক পরিদর্শনে আসেন।

দুপুরে প্রতিনিধি দলটি পার্কটির ভেতরে গিয়ে বিভিন্ন স্থাপনা ঘুরে দেখে।

এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ফারহানা জাহান উপমা, দুদক গোপালগঞ্জের উপপরিচালক মো. মশিউর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহসিন উদ্দীন, অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) সঞ্জয় কুমার কুন্ডু, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিজন মল্লিক এবং জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শনিবার (৮ জুন) সকাল থেকে গোপালগঞ্জ ও মাদারীপুর জেলা প্রশাসন পার্কের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিয়েছে। এখন থেকে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী দুই জেলা প্রশাসকের তত্ত্বাবধানে পার্কের যাবতীয় কার্যক্রম চালু থাকবে।

পরিদর্শন শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে রিসিভার নিয়োগের কথা জানিয়ে জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের রুজু করা মামলায় স্পেশাল জজের রায়ের প্রেক্ষিতে সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্কের সমস্ত কিছু ক্রোক করা হয়েছে। ইতোমধ্যে দুর্নীতি দমন কমিশনকে সঙ্গে নিয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর সহযোগিতায় ক্রোক আদেশটি জারি করা হয়েছে। আদালতের রায়ে কৃষি জমি ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালকে রিসিভার নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া পুকুর এবং জলাশয়গুলি ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য গোপালগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে রিসিভার নিয়োগ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন তাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা করবে।

তিনি আরও বলেন, রিসোর্টটি ঘুরে দেখলাম এখানে কি কি সুযোগ সুবিধা আছে। যেহেতু এটাকে ‍শুধু ক্রোক করা হয়নি, রক্ষণাবেক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সেহেতু এটাকে আমরা সচল করব। এখান থেকে যাতে রাজস্ব আয় হয়, মানুষের চিত্ত বিনোদনের সুযোগ হয় সে ব্যবস্থা করা হবে।

২০১৫ থেকে ২০২০ সালে র‌্যাবের মহাপরিচালক এবং ২০২০ সাল থেকে ২০২২ পর্যন্ত আইজিপি থাকাকালে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বৈরাগীটোল গ্রামে প্রায় ৬২১ বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলেন সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

সর্বশেষ সংবাদ

ukbanglaonline.com