ইউকে বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
হেডলাইন

সিলেট জেলা ও মহানগর আ’লীগের সাথে বিমান ও পর্যটনমন্ত্রীর মতবিনিময়

FB IMG 1709049413253 - BD Sylhet News

ইউকে বাংলা অনলাইন ডেস্ক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব:) ফারুক খান এমপি বলেছেন, বিমান ও পর্যটন শিল্পের বিষয়ে আপনারা মূল সমস্যা তুলে ধরেছেন। আমি সবকিছু নোট করে নিয়েছি। বিমান ও পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে সব ধরনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

বিগত মন্ত্রী সভায় আমি যখন বিমান ও পযর্টন মন্ত্রী ছিলাম তখন সিলেট থেকে লন্ডন ফ্লাইট আমিই উদ্বোধন করেছিলাম। তাছাড়া সিলেট থেকে দুবাই ফ্লাইট আমিই শুরু করেছিলাম। সিলেটের উন্নয়নে অতীতের মতোই আমার নজর রয়েছে। আজকেও বিমান বন্দরে অবতরণ করে সবকিছু পর্যবেক্ষণ করেছি। কর্তৃপক্ষকে আগামী ২ বছরের মধ্যে কাজ শেষ করার জন্য বলেছি। আপনারা বিভিন্ন দাবি উত্থাপন করেছেন। সব দাবিগুলো যৌক্তিক। আপনাদের দাবিগুলো নিয়ে ঢাকাতে গিয়ে আলোচনা করবো। টিকেটের দাম নিয়ে সিভিল এভিয়েশেনের সাথে কথা বলবো, কেন দাম বেশি হয় ও কেন দাম ওটা নামা করে। বাংলাদেশ বিমান ছাড়া অন্যান্য এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বাড়ানোর বিষয়ে কথা বলবো। ৬ লাইন রাস্তার কথা বলেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে এ বিষয়ে কথা বলবো। সিলেটে কেন বিমান বন্দরের উন্নয়ন হচ্ছে না। এটা নিয়ে আমি ইতিমধ্যেই কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি। বিদেশি এয়ার লাইন্সের বিষয়ে কথা বলেছেন। আসলে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিকভাবেও ফ্লাইটে সমস্যা হচ্ছে। লাকেজ হ্যান্ডেলিং এর কথা বলেছেন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। মশার বিষয়ে একজন কথা বলেছেন। পুরোপুরি নিরাময় সম্ভব নয়। তবে মশা উপদ্রব কমাতে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। টুরিস্ট পুলিশের বিষয়েও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পযর্টন বাজেটের কথা বলেছেন তবে এই মুহুর্তে সরকারী বাজেট আসার সম্ভবনা খুব কম। তবে বেসরকারি ব্যাংকের সাথে জয়েন্টভ্যাঞ্চারে পর্যটন শিল্প নিয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করা যেতে পারে। বাস পার্কিং এর কথা বলেছেন। সিটি কর্পোরেশনের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে। ইমিগ্রেশনের বিষয়ে কানাডার যাত্রীদের কথা বলেছেন। বিমানের পক্ষ থেকে হেনস্তা করা হয়েছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে এটা বিমানের কাজ নয়। তাদের সাথে এবিষয়ে কথা বলবো। বিমানবন্দরে স্মার্ট বোর্ড কাজ করে না। স্মার্ট বোর্ড কাজ না করলে ম্যানুয়াল যাতে কাজ করে সেই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। শুধু বলবো দল আছে বলেই আমরা এমপি হয়েছি। দল আছে বলেই আমরা মন্ত্রী হয়েছি। মনে রাখবেন আমি আপনাদেরই লোক। যে কোনো সমস্যা নিয়ে আমার কাছে আসলে আমি সর্বাত্মক সহযোগিতা করবো। আর আমি ঢাকাতে ফিরেই সিলেটের সকল সমস্যা নিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সিলেটের সকল সমস্যার বিষয় অবগত করবো। সিলেটের প্রতি নেত্রীর সুনজর রয়েছে। সিলেটের প্রতি নেত্রীর শ্রদ্ধা রয়েছে। নেত্রী অবশ্যই সিলেটের উন্নয়নে ভালো কিছু করবেন। আপনারা শুধু প্রিয় নেত্রীর জন্য দোয়া করবেন যাতে তিনি দেশকে আরও বেশি এগিয়ে নিতে পারেন। পরিশেষে আপনাদের দাবির প্রেক্ষিতে শুধু বলবো, বিমানে ফ্লাইটের অসঙ্গতি, ভাড়ার নিয়ন্ত্রণ, অবকাঠামো, মানসম্মত রাস্তা, নিরাপত্তা ব্যবস্থা, পর্যটন শিল্পের সমন্বয়হীনতা, দক্ষ জনবলের অভাব, বাজেটের ঘাটতিসহ সকল বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, ইনশাআল্লাহ।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪) বিকাল ৩টায় জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট মোঃ নাসির উদ্দীন খানের পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আশফাক আহমেদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো: জাকির হোসেন, সহ-সভাপতি মো: সানাওর। সভায় অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে বিভিন্ন দাবি উত্থাপন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল আলম রুহেল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এড. সৈয়দ শামীম আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. আজমল আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক তপন মিত্র, দপ্তর সম্পাদক খন্দকার মহসিন কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশ, উপ-দপ্তর সম্পাদক মো: মজির উদ্দিন, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. মো. সাকির আহমদ শাহিন, কার্যনির্বাহী সদস্য সুদীব দেব, তৌফিক বক্স লিপন, জামাল আহমদ চৌধুরী, উপদেষ্টা এনাম উদ্দিন।

মতবিনিময় সভায় জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি এড. শাহ ফরিদ আহমদ, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কবীর উদ্দিন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ শমসের জামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহফুজুর রহমান, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক হাজী ফারুক আহমদ, দপ্তর সম্পাদক আখতারুজ্জামান চৌধুরী জগলু, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক বুরহান উদ্দিন আহমদ, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মতিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদাল মিয়া, শাহিদুর রহমান শাহিন, মোঃ আব্দুল বারী, মোঃ জাকির হোসেন, শাহিদুর রহমান চৌধুরী জাবেদ, গোলাপ মিয়া।

মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, ফয়জুল আনোয়ার আলাওর, জগদীশ চন্দ্র দাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ,বিধান কুমার সাহা, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নজমুল ইসলাম এহিয়া, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আজাহার উদ্দিন জাহাঙ্গীর, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ জুবের খান , শ্রম সম্পাদক আজিজুল হক মঞ্জু, উপ-দপ্তর সম্পাদক অমিতাভ চক্রবর্ত্তী রনি,সহ-প্রচার সম্পাদক সোয়েব আহমদ, কোষাধ্যক্ষ লায়েক আহমেদ চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সদস্য মোঃ আব্দুল আজিম জুনেল, মুক্তার খান, রাহাত তরফদার, এমরুল হাসান, সৈয়দ কামাল, রোকসানা পারভীন, ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ, জাফর আহমদ চৌধুরী, খলিল আহমদ, আবুল মহসিন চৌধুরী মাসুদ, মহসিন চৌধুরী, জুমাদিন আহমেদ, রকিবুল ইসলাম ঝলক, উপদেষ্টা আব্দুল মালিক সুজন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সত্যেন্দ্র দাস তালুকদার খোকা বাবু, কানাই দত্ত প্রমুখ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

সর্বশেষ সংবাদ

ukbanglaonline.com