ইউকে মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২
হেডলাইন

হাওরের কৃষকের ঘরে নেই ঈদের আনন্দ

হাওরের কৃষকের ঘরে নেই ঈদের আনন্দ

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : প্রতিবছর বোরো ধান কাটার পর হাওরের কৃষকের ঘরে ঘরে থাকে উৎসবের আমেজ। ছেলেমেয়ে, বউ-জামাইসহ স্বজনদের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। নতুন জামাকাপড় দেওয়া হয়। ভালো ভালো খাবার রান্না করা হয়।

কোথাও বিয়েশাদিরও আয়োজন চলে। ঈদ থাকলে সেই আনন্দ অনেক বেড়ে যায়। কিন্তু এবার উৎসব তো দূরের কথা, দুমুঠো খাবারও জুটছে না কৃষকের।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর ও নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলায় আগাম বন্যায় অনেক কৃষকের সব ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। অনেক কৃষক ফসল ঘরে তুলতে পারলেও অর্ধেক নষ্ট হয়ে গেছে। অনেকে যেটুকু ধান পেয়েছেন তা-ও বিক্রি করতে পারছেন না। ৭০০ টাকা মণ দরেও ধান বিক্রি হচ্ছে না। এই অবস্থায় ঋণ পরিশোধ ও পরিবারের সদস্যদের খাবার জোগাড় করা নিয়ে ভীষণ দুশ্চিন্তায় কৃষক।

ঈদ মানে আনন্দ, সেই আনন্দ আমাদের কৃষকের মনে নাই। সুনামগঞ্জ জেলার হাজার হাজার কৃষকের আসল সম্বলটুকু পানিতে ভাসিয়ে গেছে। সেই কারনে আমাদের অভাবের মধ্যে পড়তে হয়েছে। আবার অনেকেই অনেক ক্ষতিগ্রস্তের মধ্যে পড়েছে।

‘ধান করছিলাম ১০ কিয়ার টিকছে না। এখন এইতাই কাইট্টা আনি, খাইতে পারলে খায়াম। কষ্ট ছাড়া তো চলতাছে না, বইয়া থাকলে তো চলতাছে না। এ বছর মনে হয় কষ্টে সংসার চালাতে হয়। তাই ঈদুল ফিতরের আনন্দও মনে তেমন নেই। আল্লাহ আমাদের সাহায্য করার একমাত্র মালিক।

আগাম বন্যায় ডুবে নষ্ট হয়ে যাওয়া ধান কেটে নৌকায় তুলতে তুললে আক্ষেপ করে বলছিলেন সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার আহমদপুর গ্রামের ৬০বছর বয়সী কৃষক আঙ্গুর আলী।

হাওরের একের পর এক বাঁধ ভেঙ্গে ডুবে গেল জমির আধাপাকা ফসল। শেষ মূহুর্ত রক্ষা থেকে বাঁধ ভেঙে পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে যায় এ হাওরের কৃষকদের একমাত্র ফসল বোরো ধান।

এ হাওরেই পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়েছে কৃষক আঙ্গুর আলীর ১০ কিয়ার (৩২ শতাংশে এক কিয়ার বা কেদার) জমির ধান। গত ১৫ এপ্রিল রাতে সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার চন্দ্রসোনারথাল হাওরে গিয়ে সরেজমিনে দেখা যায় আঙ্গুর আলী মতো কয়েকশ কৃষকের কষ্ট।

কৃষকরা পানিতে তলিয়ে যাওয়া যে ধান কেটে তুলছেন, তার বেশিরভাগই পচা ও নষ্ট। ধান থেকে চাল না হয়ে খুদ হবে। আর এর বেশিরভাগই মানুষের নয়, বরং গবাদীপশুর খাদ্য হিসেবেই সংগ্রহ করছেন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা।

উপজেলার রাজাপুর গ্রামের কৃষাণী রাবিয়া খাতুন বলেন, প্রত্যেক বছর ঈদ আসলে আমাদের পরিবারে সকলে জন্য কাপড় কিনি কিন্তু এবছর সামর্থ না থাকায় আমরা পরিবারের ঈদের কাপড় কিনতে পারিনা। কারণ আমাদের কিস্তি নিয়ে জমিতে ধান চাষ করেছিলাম ফসল পাওয়ার আসায় মনে প্রচুর আনন্দ ছিল সেই আনন্দ পানিতে ভাসিয়ে গেল। ‘আমি চাইর হাল ধান করছিলাম। এক কিয়ারও তুলতে হারছি না। আমার ১৫-১৬ ডা গরুও মারা যাইবো খেড়ের অভাবে।’

বৈশাখ মাস হাওরাঞ্চলের নতুন ধানের উৎসবের মৌসুম। চৈত্রের শেষ থেকেই বোরো ধান তুলতে শুরু করেন হাওরাঞ্চলের কৃষকরা। ধান মাড়াই, বাছাই, সিদ্ধ করা, বিক্রি করার এক আনন্দ উৎসবের মধ্যে দিয়ে দিন কাটান কৃষকরা।

কিন্তু এ বছর ভারতের মেঘালয়ে ব্যাপক বর্ষণের ফলে সৃষ্ট পাহাড়ি ঢলে ১ এপ্রিল থেকেই সৃষ্টি হয় বন্যা পরিস্থিতি। আগাম বন্যায় সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, নেত্রকোণা ও কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ বোরো আবাদ তলিয়ে গেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসেব মতে, এসব জেলায় মোট ৭ হাজার ৮৩ হেক্টর জমি প্লাবিত হয়েছে, যার মধ্যে অর্ধেক ধান নষ্ট হয়েছে।

তবে কৃষক ও হাওর অধিকার সংশ্লিষ্টদের দাবি, প্লাবিত হয়েছে এর থেকেও অনেক বেশি জমি এবং অন্তত ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ ধান নষ্ট হয়ে গেছে। মোট ক্ষতি হয়েছে অন্তত ১২৫ কোটি টাকার।

ধর্মপাশা উপজেলার রাজাপুর গ্রামের কৃষক নুর উদ্দিন বলেন, ‘৪০ কিয়ার জমিতে ধান করেছিলাম। কিছুটা উপরে থাকা ৫ কিয়ার জমি ছাড়া আর সবই গেছে। যেটুকু উঠাতে পেরেছি তাও চাল হবে না, খুদ হয়ে যাবে। এগুলো এত খারাপ যে পাইকাররা কিনতে চায় না, ধান কাটা শ্রমিকরাও মজুরি হিসেবে নেয় না।

তিনি বলেন, ‘ঋণ করে ধান করেছিলাম। দেড়লক্ষ টাকা ঋণে আছি। কিস্তিওয়ালারা এখন বাড়িতে এসে বসে থাকে। খাওয়ার ধানই নাই, কিস্তি দিব কীভাবে। হাওরে তো আর কোন কাজ নাই।’

রাজাপুর গ্রামের কৃষক মল্লিক বলেন, ‘আমাদের এলাকাটা খুবই গরীব। আমাদের কাচা ধান বন্যায় তলিয়ে একেবারে নষ্ট হয়ে গেছে। আর পনেরো দিন পরে যদি বাঁধ ভাঙতো তাইলে কিছুটা ধান ঘরে উঠতো। এখন তো একেবারে মরা।’

একদিকে ধান তলিয়ে যাওয়া এলাকার কৃষকদের হাহাকার, তার সাথে আবারও পাহাড়ি ঢলের আশঙ্কায় আতঙ্কগ্রস্থ করছে হাওরাঞ্চলের কৃষকদের।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্যমতে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলায় এবং ভারতের মেঘালয় ও আসামে বর্ষণের ফলে সৃষ্ট পাহাড়ি ঢলে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দেবে।

একই সাথে ফসল রক্ষায় নির্মিত বাঁধ বন্যার প্রথম ধাক্কায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবার পর পানি উন্নয়ন বোর্ড, সংশ্লিষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি এবং সাধারণ কৃষকরা দিনরাত কাজ করে বাঁধ রক্ষার চেষ্টা করছেন।

কৃষক জমিরুল ইসলাম বলেন, ‘হাওরাঞ্চলের কৃষকদের একটাই ফসল বৈশাখী ধান। কিন্তু এবার বন্যার কারণে কৃষকদের মধ্যে নতুন ধানের কোনো আনন্দ নেই। হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের যে অবস্থা, এখন আবার পানি বাড়লে ক্ষতির আশঙ্কায় আছেন কৃষক।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

সর্বশেষ সংবাদ

ukbanglaonline.com