ইউকে মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১
হেডলাইন

হেফাজতকে নিয়ে পোস্ট: ছাত্রলীগ নেতাকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করলো পুলিশ

 

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা আফজাল খান হেফাজত ইসলামকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় পুলিশের উপস্থিতিতেই তাকে লাঞ্ছিত করে মামুনুলের অনুসারীরা। সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের জয়শ্রী বাজারে মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। আফজাল খান (২৪) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের উপ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক।

তিনি উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামে আয়ুব খানের ছেলে। এছাড়াও তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী।

এ ঘটনার জন্য দায়ী করে ধর্মপাশা এসআই জহুরুল ইসলাম ও এএসআই আনোয়ার হোসেনকে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারের নির্দশে রাতেই প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ছাত্রলীগ নেতা আফজাল গত ২৯ মার্চ দুপুরে তার ফেসবুকে হেফাজতে ইসলামের সহিংসতার ছবি দিয়ে একটি পোস্ট দেন। ঘণ্টা তিনেক পর তিনি ওই স্ট্যাটাসটি শুধু নিজে দেখতে পাওয়ার মতো (অনলি মি) ব্যবস্থা করেন। কিন্তু স্থানীয় কিছু যুবক এর স্ক্রিনশট নিয়ে রাখেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রলীগ নেতা নিজের গ্রাম মহেশপুর থেকে জয়শ্রী বাজারে আসেন। তখন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলমের ছেলে আল মুজাহিদ  ৩৫-৪০ জনকে নিয়ে কেন ওই পোস্ট দিয়েছেন, তার ব্যাখ্যা জানতে চান ওই ছাত্রলীগ নেতার কাছে। আফজাল তখন উপস্থিত লোকজনকে বলেন, তিনি হেফাজতে ইসলামকে ব্যঙ্গ করে কোনো পোস্ট দেননি। তবে হেফাজতের আন্দোলনের নামে ধ্বংসাত্মক কাজের প্রতিবাদে পোস্ট দিয়েছেন।

ফেসবুকে এই ছবিগুলো শেয়ার করেছিলেন ঢাবি ছাত্রলীগ নেতা

এ নিয়ে আফজাল ও মুজাহিদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মুজাহিদ ওই ছাত্রলীগ নেতার শার্টের কলার ধরে টানাহেঁচড়া শুরু করেন। আফজালের কয়েকজন বন্ধু ও স্থানীয় কয়েকজন তাকে রক্ষা করার চেষ্টা করেন। কিন্তু মুজাহিদের পক্ষের লোকজন বেশি হওয়ায় তারা আফজালকে জয়শ্রী বাজারে থাকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে আটক করে রাখেন। দলীয় কার্যালয়ের আশপাশে কয়েক শ মানুষ অবস্থান নেয়। খবর পেয়ে ধর্মপাশা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জহিরুল ইসলাম ও সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থলে যান। তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতা আফজালের বিপক্ষে জড়ো হওয়া মানুষকে শান্ত করে উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন। সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে সেখানে উপস্থিত হন ধর্মপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন।

ছাত্রলীগ নেতা আফজাল খানের ভাষ্য, পুলিশ কোনোকিছুই শুনতে চায়নি। ওসির নির্দেশে তাকে হাতকড়া পরানো হয় এবং উপস্থিত লোকজনের কাছে তাকে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয়। সেখান থেকে হাতকড়া পরা অবস্থায় আমাকে ধর্মপাশা থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। তার বিস্তারিত পরিচয় পেয়ে পুলিশ পথেই তার হাতকড়া খুলে দেয়। পরে থানায় পুরো ঘটনার বিবরণ সাদা কাগজে লিখে তাতে স্বাক্ষর করে তিনি থানা থেকে ছাড়া পান।

আফজাল খান বলেন, ধর্মপাশা থানার পুলিশ আমাকে অন্যায়ভাবে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করেছে। এ ঘটনায় আমি আইনগত ব্যবস্থা নেবো।

ঘটনার বিস্তারিত জানতে চাইলে ছাত্রলীগ নেতা আফজাল খান বলেন, ‘গত ২৯ মার্চ আমি ফেসবুকে “হেফাজতের আন্দোলন ধর্ম নিয়ে ব্যবসা” লিখে একটি পোস্ট দেই। এই পোস্টটাকে কেন্দ্র করে আল মুজাহিদ স্থানীয়ভাবে বিষয়টিকে নিয়ে একটা ধর্মীয় অনুভূতি তৈরি করে। মঙ্গলবার বিকেলে আমি জয়শ্রী বাজারে আসার পর মুজাহিদ অনেক মানুষ সঙ্গে নিয়ে এসে আমাকে জিজ্ঞেস করে আমি কেনো ওই পোস্ট দিয়েছি। বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে তারা আমাকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ অফিসে দুই ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্থা করে।’

তিনি বলেন, ‘আটক অবস্থায় ঢাবি ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা সুনামগঞ্জ পুলিশকে জানায়। এরপরই থানা থেকে ফোর্স নিয়ে আসেন ওসি। তখন পুলিশের উপস্থিতিতেও আমাকে হেনস্থা করা হয়। এ সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলম ও যুবলীগ নেতা এনায়েত (ধর্মপাশা যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক) পুলিশকে চাপ দিলে আমাকে হাতকড়া পরানো হয়। তাদের উপস্থিতিতেই প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয় আমাকে।’

আফজাল খান জানান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলম ২০০১ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামীর ইউনিয়ন সহসভাপতি ছিলেন। আওয়ামী লীগের স্থানীয় সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের আত্মীয় হিসেবে পরে ক্ষমতায় আসার পর তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন এবং ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হন।

এ বিষয়ে আল মুজাহিদ বলেন, ‘সে (আফজাল) ফেসবুকে ‘ধর্ম নামে ব্যবসা’ লিখে স্ট্যাটাস দেওয়ার পর এলাকার মুসলিম জনতা ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ সবাই ক্ষিপ্ত হয় এবং প্রতিশোধ নেওয়ার কথা ভাবে। তখন আমি সবাইকে বোঝাই যে সে যেহেতু আমাদেরই সঙ্গের লোক, ভুল করেছে, তাকে আমি বুঝিয়ে বলব। পরে আমি তাকে বাজারে আসতে বললে সে আসে।’

মুজাহিদ বলেন, ‘তাকে আমি বলি যে মুসলমান হয়ে এই কাজটা করা ঠিক হয়নি। তখন সে ধর্ম নিয়ে আরও কটুক্তি করে। তখন উপস্থিত সবাই ক্ষিপ্ত হলে তাকে বাঁচাতেই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে নিয়ে রাখি। পুলিশ আসার পর তারা সবাইকে আশ্বস্ত করে তাকে (আফজাল) দিয়ে ক্ষমা চাইয়ে হাতকড়া পরিয়ে নিয়ে যায়।’

এ ঘটনায় রাতেই ধরমপাশা থানার এসআই জহিরুল ইসলাম ও এএসআই আনোয়ার হোসেনকে প্রত্যাহার করে সুনামগঞ্জ পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়েছে।

ধর্মপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনার পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমাদের থানার এসআই জহিরুল ইসলাম ও এএসআই আনোয়ার হোসেনকে সুনামগঞ্জ পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। আমি পরিস্থিতি শান্ত করে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করেছি এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবন্দের উপস্থিতিতেই ওই নেতা থানা থেকে ছাড়া পেয়েছেন।’ তবে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে হাতকড়া পরানো হয়নি বলে দাবি করেন ওসি।

এ বিষয়ে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, রাতে তাকে আটকে রাখা অবস্থায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমরা দ্রুত ফোর্স পাঠিয়ে তাকে উদ্ধার করি। সার্বিক বিষয় আমরা তদন্ত করে দেখছি।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। বুধবার এক যৌথ বিবৃতিতে তারা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবার বিচারের দাবি জানান।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

সর্বশেষ সংবাদ

ukbanglaonline.com